মধ্যপ্রাচ্য

ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভে ইসরায়েলের গুলিতে আহত ৩৭৯

  • প্রকাশিত ১০ জুলাই ২০২১

জমি দখলের প্রতিবাদে পশ্চিম তীরে কয়েক শ ফিলিস্তিনির বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে ইসরায়েলের সেনাবাহিনী। এতে আহত হয় ৩৭০ জনের বেশি মানুষ। তাদের মধ্যে ৩১ বিক্ষোভকারীর গায়ে গুলি লাগে।

পশ্চিম তীরের বেইতা শহরে শুক্রবার জুমার নামাজের পর এ ঘটনা ঘটে বলে আল-জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পশ্চিম তীরের উত্তরাঞ্চলীয় শহর নাবলুসের কাছে বেইতা শহরে বিক্ষোভের সময় ড্রোন থেকে কাঁদানে গ্যাসও ছোড়ে ইসরায়েল।

স্থানীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, বিক্ষোভের একপর্যায়ে ফিলিস্তিনিরা ইসরায়েলি বাহিনীর দিকে পাথর ছোড়ে। এ সময় টায়ারও পোড়ায় তারা।

ফিলিস্তিনের রেড ক্রিসেন্টের তথ্য অনুযায়ী, ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ৩৭৯ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ হয় ৩১ জন।

এ বিষয়ে ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

একই দিন পশ্চিম তীরের কাফার কাদ্দুম ও বেইত দাজান শহরেও বিক্ষোভের ঘটনা ঘটে। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে ইসরায়েল।

অবৈধ বসতি স্থাপনের বিরুদ্ধে পশ্চিম তীরের হেবরন শহরের মাসাফের ইয়াত্তা এলাকার বিক্ষোভও কঠোর হাতে দমন করে ইসরায়েলের সেনাবাহিনী।

পশ্চিম তীরে সাড়ে ছয় লাখ বসতি স্থাপনকারী (সেটলার) এ মুহূর্তে অবস্থান করছে।

পূর্ব জেরুজালেমে ফিলিস্তিনি কয়েকটি পরিবারকে উচ্ছেদ তৎপরতাকে কেন্দ্র করে কয়েক মাস আগে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে একপর্যায়ে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের সশস্ত্র সংগঠন হামাসের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

টানা ১১ দিনের সংঘাত শেষে মিসরের মধ্যস্থতায় চলতি বছরের ২১ মে যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয় ইসরায়েল ও হামাস। সংঘাতে গাজা উপত্যকা ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। নিহত হয় শিশুসহ অন্তত আড়াই শ ফিলিস্তিনি।

তবে ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েল।

আরও পড়ুন



Arthobazar