বাণিজ্য

গ্রিসে রফতানি হচ্ছে ওয়ালটন এলইডি টিভি

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৮ জুন ২০২১

বাংলাদেশের ইলেক্ট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন গ্রিসের বাজারে এলইডি টিভি রফতানি শুরু করেছে। ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ লেভেলযুক্ত হয়ে এই টিভি যাচ্ছে ইউরোপের বাজারগুলোতে। এটি ইলেকট্রনিক্স রফতানি বাজার সম্প্রসারণে একটি মাইলফলক হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

পশ্চিম ও মধ্য ইউরোপে টিভি রফতানি শুরু করার পর ওয়ালটন সম্প্রতি গ্রিসে রফতানি কার্যক্রম শুরুর জন্য শীর্ষস্থানীয় গ্রীক খুচরা বিক্রেতার সঙ্গে অংশীদারিত্ব করেছে।

এই নতুন বাজার সম্প্রসারণ ওয়ালটনকে ধীরে ধীরে অন্যান্য পূর্ব ইউরোপীয় দেশগুলিতেও প্রবেশ করতে সহায়তা করবে, ওয়ালটনের কর্মকর্তারা সম্প্রতি রাজধানীর ওয়ালটন কর্পোরেট অফিসের বোর্ড কক্ষে অনুষ্ঠিত ‘গ্রিসে রফতানি বাজারের সম্প্রসারণ’ শীর্ষক একটি প্রোগ্রামে এই মন্তব্য করেছিলেন।

ইভেন্টে, গ্রিসে এলইডি টিভি রফতানির প্রথম চালানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছিল।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ওয়ালটনের হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক রাইসা সিগমা হিমা, ওয়ালটনের গ্রিক ব্যবসায়িক অংশীদার মি। জর্জিওস টিজিয়াল্লাস, ওয়ালটন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিট (আইবিইউ) রাষ্ট্রপতি এডওয়ার্ড কিম, ওয়ালটন টিভির চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) ইঞ্জিনিয়ার মোস্তফা নাহিদ হোসেন এবং ওয়ালটনের ইউরোপীয় ব্যবসায়ের প্রধান ইঞ্জিনিয়ার তোসিফ আল মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রেখে ওয়ালটনের গ্রীক ব্যবসায়িক অংশীদার জর্জিওস টিজিয়াল্লাস বলেছিলেন, “ওয়ালটন টেলিভিশনের সমস্ত অত্যাধুনিক উত্পাদন সুবিধা দেখে আমি সত্যিই খুব খুশি এবং কঠোর কিউসি নীতি বজায় রাখার জন্য তাদের প্রচেষ্টার সত্যই প্রশংসা করি।

ওয়ালটনের ইউরোপীয় ব্যবসায়ের প্রধান মি। তোসেফ আল মাহমুদ বলেছিলেন, গ্রীস দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়ের কেন্দ্র এবং একটি উচ্চ সম্ভাব্য বৈদ্যুতিন বাজার হওয়ায় আমরা দৃড় ভাবে বিশ্বাস করি যে আমাদের অংশীদারিত্ব অদূর ভবিষ্যতে কিছু দুর্দান্ত ফলাফল অর্জন করবে। তদুপরি, এই নভেম্বরে আসন্ন ব্ল্যাক ফ্রাইডে এবং ক্রিসমাস বিক্রয়কে লক্ষ্য করে, আগামী সপ্তাহ থেকে বাংলাদেশ থেকে টেলিভিশন পণ্য চালানের প্রথম পর্ব শুরু হবে।

এই বছর ওয়ালটন গ্রিসে বিভিন্ন ৩২" টেলিভিশন মডেল রফতানি করছে এবং এই বিশেষ টেলিভিশন বিভাগটি গ্রিসের মোট টিভি বাজারের চাহিদার প্রায় ৩৫ শতাংশ অবদান রাখে। গ্রাহকরা বাংলাদেশের পণ্যগুলিতে তৈরি উচ্চমানের মাধ্যমে প্রচুর উপকৃত হবেন।

ওয়ালটন টিভির প্রধান নির্বাহী মোস্তফা নাহিদ হোসেন ওভি বলেছেন, ‘এই মহামারী পরিস্থিতি চলাকালীন ওয়ালটন উদ্ভাবনী বিপণন কৌশল নিয়ে এসেছিল, রফতানি বাজারের ক্রিয়াকলাপের অবিচ্ছিন্ন ও টেকসই বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে নতুন বিক্রয় চ্যানেলকে অভিযোজিত করেছিল। তদুপরি, মূল্য নির্ধারণের কৌশলগুলি আন্তর্জাতিক গ্রাহকদের মান তৈরি এবং সন্তুষ্ট করার জন্যও সামঞ্জস্য করা হচ্ছে।

ওয়ালটনের আইবিইউর রাষ্ট্রপতি এডওয়ার্ড কিম বলেছেন, ওয়ালটন সফ্টওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার উভয় ক্ষেত্রেই পৃথক আন্তর্জাতিক বাজারের স্থানীয় প্রয়োজনের সাথে সামঞ্জস্য করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। শীর্ষস্থানীয় ইউরোপীয় ইলেকট্রনিক্স সংস্থাগুলি এবং খুচরা বিক্রেতাদের সাথে ওয়ালটনের অংশীদারিত্বের মাধ্যমে, এর লক্ষ্য বিশ্বব্যাপী শীর্ষস্থানীয় ইলেকট্রনিক পণ্য প্রস্তুতকারক হিসাবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করা। অবশেষে ইউরোপীয় অঞ্চলে বাজারের সম্প্রসারণ কেবল বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায় বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে না বরং অন্যান্য ধরণের বৈদ্যুতিক পণ্য বাজারজাত করতে নতুন চ্যানেলগুলি আনলক করতে সহায়তা করবে।

আরও পড়ুন



Arthobazar